1. liton@somoyerbarta24.net : জাগরন বার্তা২৪ ডটকম ডেস্কঃ : জাগরন বার্তা২৪ ডটকম ডেস্কঃ
  2. admin@codeforhost.com : News Desk :
নওগাঁর প্রতিবন্ধী মেয়েদের নিয়ে ভাংগা মাটির ঘরে বাস করছেন অসহায়-মা | জাগরন বার্তা
শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০৩:২১ পূর্বাহ্ন
৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নওগাঁর প্রতিবন্ধী মেয়েদের নিয়ে ভাংগা মাটির ঘরে বাস করছেন অসহায়-মা

রিপোর্টার: মাহাবুব হাসান মারুফ, নওগাঁ প্রতিনিধি:-
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২ অক্টোবর, ২০২০
  • ৮৫ বার পাঠিত
received 961378447715149

নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার ভীমপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের গোয়ালবাড়ী গ্রামে এক দরিদ্র পরিবারের ২ কন্যা সন্তানের ২ জনই শারীরিক প্রতিতবন্ধী হওয়ায় পরিবারটি মানবেতর জীবনযাপন করছেন।
মৃত. ফজলুর রহমানের স্ত্রী মঞ্জু আরা হতদরিদ্র প্রতিবন্ধী ২ কন্যা মোছা: রেনুকা বেগম (২২), মোছাঃ মিনা বানু (২০)। অতি ভারী বৃষ্টির কারনে পুরনো মাটির একটি বাড়ি । গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ধ্বসে পরে তাদের মা আঘাত প্রাপ্ত হয়ে হাত ভাঙ্গার কারনে পরিবারটি মানবেতর জীবন যাপন করছেন।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, ঘরে প্রতিবন্ধী মেয়েদের নিয়ে কোন রকমে পড়ে থাকতে হয়। এখন থাকার বাড়িটিও ধ্বসে পড়ায় রাত কাটছে ভাঙ্গা বাড়ি দেখে দেখে। সামনে ছোট পরিসরের সেঁতসেঁতে আঙিনা। বসে থাকার মত অবস্থাও নেই, প্রতিবন্ধী মেয়েরা কেউই সাভাবিক ভাবে হাঁটতে পারেন না, গড়িয়ে গড়িয়ে চলাফেরা করতে হয় তাদের হুইল চেয়ার গাড়িও নেই। এভাবে চলতে চলতে ২ বোনের একজন ভালো করে কথা বলতে পারে না । জমি জমা নেই তাদের বসত ভিটাটুকুই একমাত্র সম্বল, সেটুকুও ভারী বৃষ্টির কারনে ভেঙ্গে গেছে। বৃদ্ধ মা যেন দুই প্রতিবন্ধী মেয়েকে নিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছেন। বেশিরভাগ সময়ই সকাল থেকে রাত মেয়েদের সেবাযত্ন নিতে ব্যস্ত থাকতে হয় তার মাকে। প্রতিবন্ধী ২ কন্যার দেখভালের করতেন তার মায়ের হাত ভেঙ্গে যাওয়ায় এখন ঠিকমতো কোন কাজেও যেতে পারছেন না। প্রতিবন্ধী মেয়েদের গোসল, খাওয়া-দাওয়া, প্রকৃতির কাজ সব কিছুই সামলাতে হয় মা’কে। প্রতিবন্ধী ভাতা ও মানুষের আর্থিক সহায়তায় অনাহারে অর্ধহারে চলে তাদের দিন। এরই মধ্যে ভারী বৃষ্টির জন্য ভেঙ্গে গেছে থাকার ঘর,তাই বর্তমানে রাত খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন পার করছেন প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে বৃদ্ধা অসহায় মা। প্রতিবন্ধী মোছা: রেনুকা বেগম বলেন, আমরা অসহায় ও দুঃখী মানুষ, খেয়ে না খেয়ে বেঁচে আছি। এখন অন্যের সহযোগিতা ছাড়া আমাদের বেঁচে থাকাই দায় হয়ে পড়েছে।
আরো বলেন, মা’র কষ্ট সহ্য করতে পারি না। এখন মা’র বয়স হয়েছে। মা’র হাত ভেঙ্গে যাওয়ায় আমাদের টানা হেঁচড়া করতে তার কষ্ট হয়। তার এই কষ্ট দেখে মরে যেতে ইচ্ছা হয়।
তার মধ্যেই কয়েক দিনের ভারী বর্ষার কারণে আমাদের থাকার বাড়িটিও ভেঙ্গে যাওয়ার অসহায় হয়ে পড়েছি। সরকার যদি আমাদের থাকার জন্য এটি বাড়ি দেখাশুনার কোন ব্যবস্থা করে দিতো,তাহলে অসহায় মা’র কষ্ট কমে যেত বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে প্রতিবন্ধী রেনুকা।

Facebook Comments

লাইক দিয়ে সবার আগে. সব খবর এর আপডেট

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

আমাদের ফেসবুক পেজ

© All rights reserved © 2020 JagoronBarta24.com
Theme Customized By codeforhost.Com
codeforhost-somoyerba149